,

নবীগঞ্জ-বাহুবলকে মাদকের ছোবল থেকে রক্ষা করতে যুদ্ধে নেমেছেন এএসপি পারভেজ আলম চৌধুরী

জাবেদ ইকবাল তালুকদার : বর্তমানে মাদক আমাদের সমাজের পরিচিত একটি সমস্যা হয়ে দাড়িয়েছে। এটি এক সর্বনাশা ব্যাধি হিসেবে আমাদের সমাজে তীব্রভাবে বিস্তার লাভ করছে। আজকাল হাত বাড়ালেই পাওয়া যাচ্ছে মাদক। মাদকের প্রভাবে প্রভাবিত হচ্ছে শিশু, কিশোর, যুবক, বৃদ্ধ, ছাত্র/ছাত্রী সহ বিভিন্ন শ্রেণী পেশার মানুষ। মাদকের কুফল না জেনেই তারা পা দিয়েছেন এই ভুল পথে। এই নিকৃষ্ট পথ থেকে তাদেরকে ফেরাতে ও সমাজকে মাদকের ছোবল থেকে রক্ষা করতে মাদকের বিরুদ্ধে যুদ্ধে নেমেছেন নবীগঞ্জ-বাহুবল সার্কেলের সিনিয়র এএসপি (সহকারী পুলিশ সুপার) পারভেজ আলম চৌধুরী। সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ফেইসবুকে পরিচয় গোপন রাখার শর্ত তথ্য দিয়ে সহযোগিতা করতে নবীগঞ্জ-বাহুবলবাসীকে তার নাম্বারে ডায়াল করার অনুরোধ করেছেন তিনি। তাহার এলাকায় তিনি প্রায় প্রতিনিয়তই মাদক বিরোধি অভিযান পরিচালনা করছেন। যুব সমাজকে মাদকের কবল থেকে রক্ষা করতে বিভিন্ন শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে তিনি অনুষ্ঠানের আয়োজন করে তাদেরকে মাদক থেকে দূরে থাকার আহবান জানান। এছাড়া প্রত্যেক অনুষ্ঠানেই তিনি তার ফোন নাম্বার দিয়ে সবাইকে মাদক সহ অনৈতিক কর্মকান্ডের তথ্য দিয়ে সহযোগীতা করার আহ্বার জানান। এ ব্যাপারে নবীগঞ্জ-বাহুবল সার্কেলের সিনিয়র সহকারী পুলিশ সুপার পারভেজ আলম চৌধুরী দৈনিক হবিগঞ্জ সময়ের এ প্রতিবেদককে বলেন, মাদক একটি মরণ নেশা এর ছোবল থেকে ছাত্রসমাজ, যুবসমাজসহ নবীগঞ্জ-বাহুবলবাসীকে রক্ষার জন্য আমরা আন্তরিকভাবে কাজ করে যাচ্ছি। মাননীয় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা ও আইজিপি মহোদয় মাদকের বিরুদ্ধে জিরো ট্রলারেন্স ঘোষণা করেছেন। সারা দেশের পুলিশ মাদকের বিরুদ্ধে নেমেছে এরই ধারাবাহিকতায় আমরাও মাদকের বিরুদ্ধে যুদ্ধে নেমেছি। কোন মাদক ব্যবসায়ীকে ছাড় দেয়া হবে না বলেও তিনি দৈনিক হবিগঞ্জ সময়ের এ প্রতিবেদককে বলেন। উল্লেখ্য, গত ২৯ জুলাই বাহুবল উপজেলার মিরপুরে বাহুবল উপজেলার মিরপুরে ‘মাদক নির্মুল কমিটি’ (মানিক) এর উদ্যোগে সচেতনতামুলক আলোচনা সভায় এ.এ.স.পি পারভেজ আলম চৌধুরী বলেন ”আমি এবং মাদক এই ২টি জিনিস একত্রে থাকতে পারবেনা, হয় আমি থাকব না হয় মাদক থাকবে”। নবীগঞ্জ-বাহুবলকে মাদকমুক্ত করতে নবীগঞ্জ-বাহুবলের সর্বস্থরের জনসাধারনের সহযোগীতা কামনা করছেন তিনি। তিনি আরও বলেন শুধু মাদকের বিরুদ্ধেই যুদ্ধে নামেননি জুয়া, মাদক, ছিনতাই, সন্ত্রাসী কার্যকলাপসহ সকল ধরনের অনৈতিক কর্মকান্ডের বিরুদ্ধে জিরো ট্রলারেন্সে কাজ করছেন। এএসপি পারভেজ আলম চৌধুরী ও নবীগঞ্জ থানার অফিসার ইনচার্জ মোঃ আজিজুর রহমানের প্রচেষ্টায় গত ১ আগস্ট নবীগঞ্জ উপজেলার করগাঁও ইউনিয়নে মেয়ে ও জামাতার হাতে মারা যাওয়া ছালেমা হত্যাকান্ডের ২৪ ঘন্টার মধ্যে হত্যার মূল রহস্য উদঘাটনসহ হত্যার সাথে জড়িত আসামীদের ধরতে সক্ষম হয় নবীগঞ্জ থানা পুলিশ।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

     এই বিভাগের আরো খবর