,

শ্রীমঙ্গলে আ.লীগ প্রার্থীর জয়, কারচুপির অভিযোগ নির্বাচন বর্জন অন্য দুই প্রার্থীর

সময় ডেস্ক ॥ মৌলভীবাজারের শ্রীমঙ্গলে উপজেলা পরিষদর চেয়ারম্যান পদে উপ নির্বাচনে বিজয়ী হয়েছেন আওয়ামী লীগ মনোনীত নৌকা প্রতীকের প্রার্থী ভানু লাল রায়। ৫৮,১৫৪ ভোট পেয়ে নির্বাচিত হয়েছেন তিনি। তার নিকটতম প্রতিদ্বন্দ্বী স্বতন্ত্র প্রার্থী প্রেমসাগর হাজরা। তিনি আনারস প্রতিক নিয়ে ৩৩০৯৬ ভোট পেয়েছেন। আরেক স্বতন্ত্র প্রার্থী আফজল হক ঘোড়া প্রতীক নিয়ে পেয়েছেন ১২৮৮৮টি ভোট মোট ৮০টি কেন্দ্রের ফলাফল ঘোষণা শেষে ভানু লাল রায়কে বিজয়ী ঘোষনা করা হয়। বৃহস্পতিবার রাতে উপজেলা পরিষদ হল রুমে জেলা নির্বাচন কর্মকর্তা ও এই নির্বাচনের রিটার্নিং কর্মকর্তা আলমগীর হোসেন ভানু লাল রায়কে বেসরকারীভাবে নির্বাচিত ঘোষণা করেন। এর আগে বিকেল ৪টার দিকে উপজেলা পরিষদ উপ-নির্বাচনের ভোট বর্জন করেন স্বতন্ত্র প্রার্থী আফজল হক (ঘোড়া), স্বতন্ত্র প্রার্থী প্রেমসাগর হাজরা (আনারস)। প্রেমসাগর হাজরা অভিযোগ করে বলেন, ভোটের দিন সকাল থেকে বিভিন্ন ভোট কেন্দ্রে নৌকা প্রার্থীর সমর্থকরা কেন্দ্রে প্রভাব বিস্তার ও দখল করে রেখে জাল ভোট দিয়েছেন। বিভিন্ন কেন্দ্র থেকে তাদের এজেন্টদের বের করে দেয়া হয়। দুপুর ৩টার দিকে দারুল উলুম ফাজিল মাদ্রাসা সেন্টারের সামনে তার (প্রেম সাগর আনারস) এর কর্মী মোহন রবি দাশের উপর নৌকা প্রতিকের সমর্থকরা মারধর করে। এতে মোহন রবি দাশের মাথা ফেটে রক্ত বের হয়। এমন অভিযোগ এনে তিনি নির্বাচন প্রত্যাখ্যান করেন। তিনি বলেন, চা শ্রমিকরা বার বার জাতীয় নির্বাচনে আওয়ামী লীগকে ভোট দিয়ে আসছেন। আমি চা শ্রমিক সন্তান হয়ে এই নির্বাচনে অংশ নিয়েছি। কিন্তু আমরা যাদের বার বার ভোট দিয়ে বিজয়ী করি, তারাই আমাদের এই নির্বাচনে কারচুপি করলো। আমাদের সাথে অন্যায় করা হয়েছে। স্বতন্ত্র প্রার্থী আফজল হক অভিযোগ করে বলেন, আমরাও আওয়ামী লীগ করি। কিন্তু আওয়ামী লীগ কর্মীরা যেভাবে একটি সুন্দর ভোটকে কারচুপির মাধ্যমে নষ্ট করেছে সেটা নিয়ে আমরা আইনি ব্যবস্থা নিবো। আমাদের এই নির্বাচনে বিজয়ের কথা ছিলো। কিন্তু যেভাবে সব ভোট কেন্দ্র দখল করে নৌকায় ছিল মেরে বাস্ক ভর্তি করা হয়েছে। সেখানে এই নির্বাচন আমরা বর্জন করেছি। এদিকে দুপুর ২টার দিকে কাসিমপুর সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের সামনে র‌্যাবের সাথে গ্রামবাসীর সংঘর্ষ হয়। সেখানে গ্রামবাসী হামলায় দুই র‌্যাব সদস্য আহত হন। আহতরা হলেন ল্যান্স নায়েক আক্তার ও কনস্টেবল আবু বকর আহত হন। পরে র‌্যাব, পুলিশ ও বিজিবি ঘটনাস্থলে গিয়ে পরিস্থিতি স্বাভাবিক করেন। নির্বাচনের রির্টানিং কর্মকর্তা ও মৌলভীবাজার জেলা নির্বাচন কর্মকর্তা আলমগীর হোসেন বলেন, ভোট বর্জনের বিষয়টি আইনগত সিদ্ধ নয়। দুই প্রার্থীর ভোট বর্জনের কথা আমরা লোকমুখে শুনেছি। প্রার্থীরা আমাদের জানায় নি। এখানে শান্তিপূর্ণভাবে ভোট হয়েছে কিছু ভোট কেন্দ্রে বিচ্ছিন্ন ঘটনা ঘটলেও আইন শৃঙ্খলাবাহিনী সেটা সামাল দিয়ে দিয়েছেন। কোথাও কোন কারচুপি হয় নি। ভোট শতভাগ সুষ্ঠ হয়েছে। এই নির্বাচনে আওয়ামী লীগ মনোনীত প্রার্থী ভানু লাল রায় (নৌকা), জাতীয় পার্টির মনোনীত প্রার্থী মিজানুর রব (লাঙ্গল), স্বতন্ত্র প্রার্থী আফজল হক (ঘোড়া) ও স্বতন্ত্র প্রার্থী প্রেমসাগর হাজরা (আনারস) প্রতীকে প্রতিদ্বন্ধিতা করছেন। গত ২১ মে এই উপজেলার চেয়ারম্যান রনধীর কুমার দেব মারা যান। পরে চেয়ারম্যান পদটি শুন্য ঘোষণা করা হয়। নির্বাচনের তফসিল ঘোষণা করে ৭ অক্টোবর এই পদে ভোট গ্রহণের তারিখ নির্ধারণ করে নির্বাচন কমিশন। এই নির্বাচনে ১টি পৌরসভা ৯টি ইউনিয়নে মিলে ২লক্ষ ৩৩ হাজার ৯শ ১৬ জন ভোটার রয়েছেন।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

     এই বিভাগের আরো খবর