,

আজমিরীগঞ্জে ড্রেজার মেশিন দিয়ে অবৈধভাবে বালু উত্তোলন

হাবিবুর রহমান রিয়াদ ॥ আজমিরীগঞ্জে কালনী নদীর তলদেশ কেটে প্রতিনিয়ত চলছে বালু উত্তোলন। মাঝে মধ্যে প্রশাসনের অভিযানে সাধারণ শ্রমিকদের গ্রেফতার করে বিভিন্ন মেয়াদে অর্থ দন্ড, কারাদন্ড প্রদান করা হলেও ড্রেজার মেশিন এবং মুলহোতারা থেকে যায় ধরা ছোঁযার বাহিরে। তবে অভিযোগ রয়েছে প্রশাসনের অভিযানের পুর্বেই অভিযানের খবর পৌঁছে যায় বালুখেকোদের কাছে। গতকাল বুধবার সরজমিনে দেখাযায়, আজমিরীগঞ্জ সদরে উপজেলা প্রশাসন থেকে মাত্র কয়েকশ মিটার দুরত্বে বাঁশ মহাল সংলগ্ন কালনী নদী এবং বদলপুর ইউনিয়নের পাহাড়পুরে দিনে দুপুরে চলছে নদী থেকে অবৈধ বালু উত্তোলন। বিগত কয়েক বছর যাবত থেমে থেমে অপরিকল্পিতভাবে বালু উত্তোলন করার ফলে ইতিমধ্যেই উপজেলার বিভিন্ন ইউনিয়নের বেশ কটি গ্রামের অন্তত শতাধিক বাড়ী ও কযেকশ হেক্টর ফসলি জমি নদী গর্ভে বিলীন হয়েছে। নদী ভাঙ্গনের বিষয়টি বিভিন্ন সময়ে বিভিন্ন গনমাধ্যমে প্রকাশিত হলে সরকারি অর্থায়নে বিগত কয়েক বছর যাবত নদী ভাঙ্গনের হাত থেকে বসত বাড়ি ও ফসলি জমি রায় কোটি কোটি টাকা ব্যায়ে নির্মিত হচ্ছে বাঁধ। কিন্তু সম্প্রতি সময়ে বালু খেকো চক্র আটঘাট বেধে সক্রিয় হওয়ায় বাঁধ নিয়ে শংকায় পড়েছেন স্থানীয় কৃষক, শ্রমিক সহ সাধারণ বাসিন্দারা। এ বিষয়ে বদলপুর ইউনিয়নের বাসিন্দা মুজিবর মিয়া জানান অপরিকল্পিত ভাবে অবৈধ বালু উত্তোলনের ফলে ইতিমধ্যে পিরোজপুর গ্রামের অধিকাংশ বাড়ি ঘর সহ ফসলী জমি নদী গর্ভে বিলীন গিয়ে এমপির প্রচেষ্টায় আমরা বাঁধ পেয়েছি। কিন্তু সম্প্রতি আবারো বালু উত্তোলনের ফলে দুঃচিন্তায় দিনপাত করছি। এ বিষয়ে উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা ইউএনও সুলতানা সালেহা সুমী জানান সরকারি কাজের জন্য ড্রেজার দিয়ে বালু উত্তোলন করা হচ্ছে। ঐখানে সাইনবোর্ড টাঙ্গানো রয়েছে।

     এই বিভাগের আরো খবর